যে পাঁচটি কারণে বাংলাদেশে অবৈধ সেট বন্ধ হয়ে যাবে

81 / 100

মোবাইল ফোন: যে পাঁচটি কারণে বাংলাদেশে  অবৈধ সেট বন্ধ হয়ে যাবে

বাংলাদেশে অবৈধ সেট বন্ধ বা আর ব্যবহার করা যাবে না। এর আগে একাধিকবার বিটিআরসি এই সময়সীমা নির্ধারণ করলেও সেটি কার্যকর করতে পারেনি। তবে এবার বিটিআরসি এটি কার্যকর করার ক্ষেত্রে বদ্ধপরিকর। যেসব মোবাইল ফোন সেট বিটিআরসির অনুমোদন নিয়ে আমদানি বা প্রস্তুত করা হয়নি সেগুলোই হচ্ছে অবৈধ।

বিটিআরসির স্পেকট্রাম ডিভিশনের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শহিদুল আলম বিবিসিকে বলেন, বাংলাদেশের ভেতরে যেসব নতুন মোবাইল সেট ব্যবহার করা হবে সেগুলো অবশ্যই নিবন্ধিত হতে হবে।

মোবাইল ফোনের বৈধতা যাচাই করার নিয়ম:

২০১৮ সাল থেকে বিটিআরসি মোবাইল ফোনের আইএমইআই দিয়ে একটি ডাটাবেস তৈরি করছে। যদি কোন মোবাইল ফোনসেটের তথ্য এই ডাটাবেসে না থাকে তাহলে বিটিআরসি চাইলে অবৈধ সেট বন্ধ করে দিতে পারে। সেজন্য নতুন ফোন সেট কিনতে হলে সেটি বৈধ কি না তা অবশ্যই নিশ্চিত হতে হবে। ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শহিদুল আলম বলেন, এনইআইআর সিস্টেম ব্যবহার করে অবৈধ সেট বন্ধ বা অবৈধ মোবাইল ফোন সেট শনাক্ত করা যাবে। তবে  যারা অনিবন্ধিত মোবাইল ফোন এখনো ব্যবহার করছেন, সেগুলো ডাটাবেজে অন্তর্ভুক্ত করার সুযোগ দেয়া হবে। কর্মকর্তারা বলছেন, বাইরের দেশ থেকে নতুন যেসব মোবাইল ফোন সেট আসবে সেগুলো রেজিস্টার্ড হয়ে রেকর্ড থাকতে হবে।

কেন এই নিয়ম?

বিটিআরসির পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শহিদুল আলম বিবিসি বাংলাকে বলেন, মোবাইল ফোন সেট রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে নেটওয়ার্কের আওতায় নিয়ে আসার কয়েকটি উদ্দেশ্য রয়েছে। একদিকে যেমন এর নিরাপত্তাজনিত বিষয় রয়েছে অন্যদিকে তেমন আর্থিক দিকও রয়েছে। এই দিকগুলো হচ্ছে:

১. অবৈধভাবে কেউ যাতে হ্যান্ডসেট আনতে না পারে।

২. মোবাইল সেটগুলো যদি নিবন্ধিত থাকে তাহলে আমদানিকারীরা কোনও ভাবে সরকারের ট্যাক্স ফাঁকি দিতে পারবে না।

৩. কেউ যদি কারো মোবাইল ফোন ছিনতাই বা চুরি করে তাহলে অন্য কেউ সেটি বিক্রি বা ব্যবহার করতে পারবে না। চুরি হওয়া সেটগুলো উদ্ধার করা খুবই সহজ হবে।

৪. একসাথে মোবাইল সিম, আইএমইআই এবং জাতীয় পরিচয়পত্র ট্যাগিং করা হবে। এতে করে একজনের নামে নিবন্ধিত মোবাইল বা সিম অপরজনের মোবাইল সেটে ব্যবহার করা যাবে না।

৫. কেউ যদি মোবাইল ফোন ব্যবহার করে কোন অপরাধ করে তাহলে সেটির বিরুদ্ধে দ্রুত এবং সহজে ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে।

বিটিআরসি জানিয়েছে, ১৫ কোটি মোবাইল ফোন সেট এখনো পর্যন্ত রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে। বিটিআরসির পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শহিদুল আলম বলেন, এই উদ্যোগ নেবার পর থেকে অবৈধ পথে হ্যান্ডসেট আসার সংখ্যা কমে গেছে।

Join us

Facebook  Linkedin  

1 thought on “যে পাঁচটি কারণে বাংলাদেশে অবৈধ সেট বন্ধ হয়ে যাবে”

Leave a Comment

Your email address will not be published.